erotic romance বিমল বাবুর কামনা – 2

bangla erotic romance choti. দেখতে দেখতে পুজো চলে আসে।বাবলু তার কাছে বিভিন্ন আবদার করে।নিলাকে
“মামানি তুমি কি নেবে? জিজ্ঞাসা করে বিমল।
পাখি জামা,লাজুক মুখে বলে নিলা।
“আর?”
“আর স্যান্ডেল”
“আর কি?”হাসি হাসি পশ্রয়ের মুখে জিজ্ঞাসা করে বিমল।

“জেঠু,”বিমলের গা ঘেঁসে আসে নিলা, তার দিঘল নরম উরু ঘসা খায় বিমলের উরুতে বাম দিকের স্তনে ডুবে যায় ডান কুনুই,’আহ মেয়েটা কি পাগল করে দেবে তাকে,’মনে মনে শিহরিত হলেও,মুখে নির্লিপ্ত ভাব বজায় রেখে বলে বিমল
“বল মামনি,
“পুজোর ছুটিতে কিন্তু আমি সিনামা দেখবো”
“আচ্ছা ঠিক আছে সে হবেক্ষন,হেসে বলেছিলো বিমল।

erotic romance

“না,মাকে কিন্তু তুমি যে করে হোক রাজী করাবে”
“আচ্ছা ঠিক আছে।কাল তাহলে মার্কেটে যাব আমরা”
“আমাকে কিন্তু কথা দিলে”বলেছিলো নিলা
“আচ্ছা বাবা আচ্ছা,”বলে মাথা নাড়িয়েছিলো বিমল।



“আমার লক্ষি সোনা জেঠু”,বলে আনন্দের অতিসহ্যে যা কখনো করেনি তাই করেছিলো নিলা।দুহাতে বিমলের গলা জড়িয়ে ধরে ঝাপটে ধরেছিলো বিমলকে।এতটা আশা করেনি বিমল,ভাগ্যি কেউ ছিলোনা সেখানে।দির্ঘাঙ্গী নিলার নরম উরু তার উরুর সাথে কিশোরী তলপেটের উষ্ণতা,বিশেষ করে ফ্রকের তলে নিলার ব্রেশিয়ারহীন অনস্র পাহাড় দুটো বিশ্রী ভাবে লেপ্টে গেছিলো বুকের সাথে।আলতো করে একহাতে নিলার কোমোর অন্যহাতে নিলার পিঠ জড়িয়ে ধরেছিলো বিমল,আদর করার ছলনায় হাতটা নামিয়ে এনেছিলো নিলার পাছার উপর। erotic romance

পাতলা ফ্রক তলে পরা প্যান্টির নিচে উষ্ণ নরম তুলতুলে মাংসের তাল, জেঠু তুমি না খুব ভালো,বিমলের গলা জড়িয়ে একটু লাজুক গলায়,আমি..আমি তোমাকে খুব ভালোবাসি,”বলে আর একটু জড়িয়ে ধরেছিলো নিলা।হাত তুলে তার গলা জড়িয়ে থাকায় ঘামেভেজা ফ্রকের বগলের কাছটা মেলে থাকায় নিলার বগলের ঝাঁঝালো ঘামের গন্ধটা ঝাপটা মারছিলো বিমলের নাঁকে।নরম মৃণাল বাহুর বেষ্টনী এ অবস্থায় কেউ দেখলে এতদিনের পরিশ্রম চেষ্টা সব বৃথা যাবে.

তবুও হঠাৎ পাওয়া এই অমুল্য সুযোগ ছাড়তে মন চায়নি বিমলের, “আমিও তোমাকে,বাবলুকে খুব ভালোবাসি মামনি,” ফ্রক প্যান্টির উপর দিয়েই নিলার নিতম্বে লেপ্টে থাকা প্যান্টির কিনারা বেয়ে আঙুলের ডগা নিলার দুই নিতম্বের মাঝের চেরায় চালিয়ে দিয়ে, বলেছিলো বিমল।আহ কি গরম জায়গাটা যেন ভাব উঠছে ছুঁড়ির পাছার ফাঁক থেকে।আরো সরে এসেছিলো নিলা। ততক্ষণে পাজামার নিচে পুর্ন উত্থান ঘটেছে বিমলের তার তলপেট আরো নিবিড় হয়ে আসে নিলার তলপেট। erotic romance

পাতলা ফ্রকের নিচে পাতলা জাঙিয়া উরুসন্ধির খাজ দু পা ফাক করে থাকায় অরক্ষিত, কাপড়ের উপর দিয়ে সরাসরি সংযোগ ঘটেছিলো যোনীদেশ আর লিঙ্গের,নিলার যোনীর ঠোঁট দুটোর উপর গজানো কোমোল লোমের আভাস পৌছে গেছিলো লিঙ্গের ডগার সংবেদনশীল অংশে। একটা অসস্তি সেই সাথে তিব্র ভালোলাগা ইচ্ছা থাকলেও প্রত্যাহার করে নিতে পারেননি বিমল তলপেটের নিচে উষ্ণ কাবোষ্ণো জায়গাটায় লিঙ্গ ঠেকিয়ে রেখে নিলাকে বুকে নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন ওভাবেই।

সেদিনের আলিঙ্গনে গ্রিন সিগন্যাল পেয়ে মনটা ময়ূরের মত নেঁচে উঠেছিলো বিমলের এতদিনে পরিশ্রম স্বার্থক হয়েছে তার।সেদিন রাতে নিলাদের বাসায় সলীল আর স্বাতীকে উদ্দেশ্য করে
“তোমাদের একটা কথা বলতে চাই আমি,
“কি কথা দাদা,আমাদের বলার জন্য জিজ্ঞাসা করতে হবে,আদেশ করুন “বলে সলীল। erotic romance

“হ্যা দাদা,স্বামীর মুখ থেকে কথা কেড়ে নিয়ে বলেছিলো স্বাতী,আপনাকে আমরা নিজের দাদা ই মনেকরি ভালোবাসি শ্রদ্ধা করি।”
“আমিও তোমাদের নিজের ভাই ভাই বৌ মনে করি,তোমার ছেলে মেয়ে দুটো দেখে আমার নিজের ছেলে মেয়ে দুটোর কথা মনে পড়ে,ওদের ছেড়ে আমি….”বলতে বলতে গলাটা ভারী হয়ে আসে বিমলের। আহ দাদা,বলে উঠে বিমলের পাশে এসে বসে স্বাতী তার বাম দিকের গোলাকার স্তুন ঘসা খায় তার ডান বাহুতে,সম্ভবত ব্লাউজের তলে ব্রেশিয়ার পরনি স্বাতী, মায়ের মতই সুস্তনি নিলা,গড়নের দিক থেকে দুজনের প্রায় একই রকম।

“আমরা তো আছি,আর ছেলেমেয়ে তো আপনারই”
“তাই যদি মনে কর তাহলে কাল ওদের নিয়ে মার্কেটে যাব আমি,তোমরা কিন্তু কিছু বলতে পারবেনা।”বিমলের বলার ভঙ্গিতে হেসে ফেলেছিলো স্বামী স্ত্রী। পরের দিন নিলা আর বাবলুকে নিয়ে মার্কেটে যান বিমল।ঘুরে ঘুরে ছেলে মেয়ে দুটোর পছন্দের জিনষ কেনেন।নিলার পাখি জামা দশ হাজার টাকা দাম হলেও কিনতে দ্বিধা করেন না, erotic romance

“এত দাম বলে চোখ বড় করে নিলা,না না জেঠু এত দাম দিয়ে কিনোনা,”
“এই মেয়ে আমি কিন্তু রাগ করবো,”কৃত্তম রাগের ভঙ্গি করেন বিমল
“আচ্ছা বাবা তোমার যা মন চায় কর,”খুশিতে ঝলমল করে বলে নিলা।
“শোনো, “যেন ষড়যন্ত্র করছে এমনভাবে ফিসফিস করে নিলাকে বলেন বিমল,”দামের কথা মাকে বলার দরকার নেই কেমন।”

“আচ্ছা তুমি যা বলবে,”বলে বিমলের হাত জড়িয়ে ধরে নিলা।আজ নিলার পরনে চুড়িদার কামিজ,টাইট ফিটিং কামিজের কোমোরের কাছ থেকে নিচের দিকে দুদিকে ফাড়া।যথারীতি হলুদ কামিজের বগল দুটো গোল হয়ে ঘামে ভিজে আছে,পাতলা কামিজের তলে ব্রেশিয়ারের প্রান্তরেখা পিঠের দিকের স্ট্রাপ সহ গরমে ঘামে অন্তর্বাসের পুর্ণাঙ্গ আউটলাইন,কিশোরীর অসচেতনায় বারবার বহিঃ প্রকাশ ঘটায়। erotic romance

বেশ বড় গলা কামিজের বালিকার স্তন সন্ধির মৃদু আভাস ওড়নার তল থেকে পুর্নবয়ষ্কা যুবতীর মত বিশাল স্তনের লোভোনীয় ঠেলে বেরিয়ে আসা,নিলার নিম্নাঙ্গে পাতলা আঁটসাঁট চুড়িদার চামড়ার সাথে লেপ্টে থেকে গোলাকার নিতম্ব সুগঠিত উরু সুন্দর গড়নের পা দুটো এমন ভাবে ফুটিয়ে তোলে যে বার বার নিলার কামিজের তল থেকে বেরিয়ে আসা পায়ের দিকে ভরাট হয়ে ওঠা উরুর দিকে তাকাতে বাধ্য হন বিমল। সব কিছু কেনা হওয়ার পর একটু ইতঃস্তত করেন বিমল।

!কি হল জেঠু সবই তো কেনা হল,এখন চল।”
“না,মানে,তোমার আন্ডারগার্মেন্টস তো কেনা হল না”
“সেটা আবার কি?”একটু বিষ্মিত গলায় বলে নিলা,
“ঐ যে ভেতরের জামা প্যান্ট আরকি”যেন জানেনা এমনভাবে বলেন বিমল,
“হিহিহি,ও ব্রা প্যাণ্টি?আছেই তো”
“সে তো পুরোনো,পুজোর জন্য সব কিছু নতুন কিনতে হবে না।” erotic romance

“জানিনা বাবা,আমি ওসব কিনিনা আম্মুই কিনে আনে,”পাকা মেয়ের মত বলে নিলা,তার বড় চোখে কটাক্ষ দেখে শরীরে শিহরণ জগে বিমলের।
“আহহা এখন বড় হচ্ছ এসব জিনিষপত্র নিজেরই তো কেনা উচিত তোমার।”
সে বড় হয়েছে এই স্বীকৃতি প্রয়োজন ছিলো নিলার,তার নিজের ক্লাশের অনেক মেয়েকে নিজের জিনিষ নিজেকে কিনতে দেখেছে সে অথছ তার আম্মু এখনো তাকে ছোট মেয়ের মত চালাতে চায়।বাবা মায়ের প্রতি একটা বিরক্তি একটা অভিমান অনেক দিন ধরেই মনে জমা হয়েছিলো তার,বিমল বলতেই
“আমি চাই কিন্তু আম্মু দেয়না,”আড়চোখে বাবলুকে দেখে শুধু বিমল যাতে শুনতে পায় এভাবে বলে নিলা।

“এখন থেকে নিজের যা যা জিনিষ নিজেই কিনবে তুমি,টাকা আমার কাছে চাইবে,মাকে বলার দরকার নাই।”
নিজের ভরসার জায়গাটা খুজে পায় নিলা,জেঠুর প্রতি কৃতজ্ঞতায় মনটা ভরে ওঠে তার।
“চল তাহলে কিনি,বলে নিলাকে নিয়ে বড় একটা দোকানে ঢোকে তারা। তাদের দেখে এগিয়ে আসে সেলসম্যান,
বলুন স্যার”
“ব্রা প্যান্টি দেখান তো,” erotic romance



“স্যার মাপ,”সেলসম্যানের প্রশ্নে নিলার দিকে তাকায় বিমল।লাজুক মুখে মাপ বলে নিলা,
থার্টিফোর সি, বেশ কতগুলো ব্রেশিয়ার বের করে দেয় সেলসম্যান সেই সাথে প্যান্টি।না না এগুলো না,ভালো গুলো দেখান।
স্যার দেশীর মধ্যে এগুলো সবচেয়ে ভালো,বাচ্চা মেয়েদের জন্য আরাম দায়ক।”
না না সবচেয়ে ভালোগুলো দেখান
স্যার বিদেশীগুলো ফ্যান্সি টাইপ দেখাবো কি, দাম কিন্তু বেশি হবে,
আহহা আপনাকে দাম নিয়ে চিন্তা করতে হবে না,বিরক্ত মুখে বলে বিমল।

আচ্ছা স্যার দেখাচ্ছি,বলে এগুলো বিদেশী বলে প্যাকেট থেকে ব্রা প্যান্টির সেট বের করে সেলসম্যান। হালকা মেরুন কালারের ব্রা ম্যাচিং প্যান্টিটা সিল্কএর তৈরি। নিলাকে এই ব্রা প্যান্টিতে কল্পনা করে পঞ্চান্ন বছরেও বাইশের যুবকের মত দৃড় হয়ে ওঠেন বিমল।শ্যামলা রঙ মেয়ের হালকা রঙ হলে ত্বম্বি শরীরে ফুটবে ভালো,ভেবে সেলস ম্যানকে
“আর কোনো কালার নেই,হালকা কোনো কালার। erotic romance

“স্যার হালকা বলতে এই হলুদ আর কলাপাতা এই দুটো কালার হবে।”
আচ্ছা দুটোই দিন,দাম কত?
দুটো ষোলোশ টাকা,বলে সেলসম্যান।
না না জেঠু এত দামী টা না,দাম শুনে আঁৎকে ওঠে নিলা।

ও কিছু না,ও কিছু না,আপনি প্যাকেট করুন বলে টাকা বের করে দেন বিমল।কেনাকেটা শেষে দোকান থেকে বেরিয়ে, অনেক কেনাকেটা হয়েছে এবার বাড়ী বলে বেশ বড় করে তৃপ্তির একটা নিঃশ্বাস ছাড়ে নিলা। উহু,বলে মাথা নাড়েন বিমল,চল এবার আইসক্রিম বলেন বিমল। ইস জেঠু তুমি কি ভালো আনন্দে চেচিয়ে উঠে বাবলু। তুমি কিন্তু খুব দুষ্টু হয়েছো বাবলু,বড় দিদি সুলভ গলায় বলে নিলা,জেঠুকে বেশি জ্বালাতন করতে মা কিন্তু মানা করেছে।বিমলের দিকে কটাক্ষ হেনে বলে নিলা। erotic romance

কচি মেয়েটার বড়মানুষি কটাক্ষে শরীরের ভেতরে উত্থাল পাত্থাল এক আনন্দ হয় বিমলের এই কমাসের পরিশ্রম চেষ্টা প্রায় স্বার্থক মনে হয় তার। বাড়ীতে ফিরে একটু ভয়ে ভয়ে ছিলেন বিমল,বিশেষ করে নিলার ব্রা প্যান্টির জন্য,না জানি নিলার মা কি মনে করে।অবশ্য নিলার মায়ের জন্য একটা বেশ দামী কাঞ্জিভরম শাড়ী কিনেছেন তিনি।রাতের খাওয়ার পর সাধারনত বাবলু একবার তার সাথে দেখা করতে আসে তার সাথে মাঝে মধ্যে নিলাও।আজ শুধু নিলাকে একা দেখে বিষ্মিত হন তিনি,
“মামনি,তুমি একা, বাবলু কোথায়?”

“ইস শুধু বাবলু আর বাবলু আমি বুঝি কেউ না?ও ঘুমিয়ে পড়েছে।”বিমলের সামনে চেয়ারে বসতে বসতে বলে নিলা।
“বাবলু তো প্রতিদিন আসে জেঠুকে দেখতে আসে,তুমিই তো আসো না।”
“আমার বুঝি আসতে ইচ্ছা হয় না,মা ই তো আসতে দেয় না।”
“মা কে দেখিয়েছো সব,
“হ্যা মায়ের খুব পছন্দ হয়েছে সব।” erotic romance

“তাই,একটু ইতঃস্তত করে বিমল,ব্রা প্যান্টির বিষয়ে কিছু বলল?”
“ধ্যাত মাকে ওসব দেখাবো নাকি,লুকিয়ে রেখেছি।”বড়মানুষি ভঙ্গী তে বলা নিলার কথায় মনে মনে খুশিতে ডিগবাজি দেন বিমল,যাক মেয়ে তাহলে মায়ের কাছে অনেক কিছু গোপোন করে।একটু সাহসী হন বিমল
“না ওগুলো তো কেমন হল দেখতে পারবো না,হাজার হোক বড় হয়ে গেছ।”কথটা শুনে কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে নিলা,পায়ের আঙুল দিয়ে মেঝে মতে আঁক কাটে,মেঝের দিকে চোখ রেখেই

“তুমি যদি দেখতে চাও তাহলে দেখাবো আমি,ফিসফিস করে বলা নিলার কথাগুলো স্পষ্ট শুনলেও নিজের কানকে ঠিক বিশ্বাস করতে পারেনা বিমল,কিছুটা হতভম্ব হয়ে
“মানে,”বলে ফ্যালফ্যাল করে চেয়ে থাকে নিলার দিকে।এবার তার দিকে সরাসরি তাকায় নিলা,
“মানে তুমি যেগুলো কিনে দিলে,ব্রা প্যান্টি তুমি চাইলে পরে দেখাতে পারি,”কথাগুলো বলতে বলতে মুখটা লজ্জায় লাল হয়ে ওঠে তার। erotic romance

নিজের ভেতরে একটা এ্যালার্ম বেজে ওঠে বিমলের,খুব বেশি আগ্রহ না দেখিয়ে যেন নিলার ছেলেমানুষি দুষ্টুমিতে মজা পেয়েছে এমন ভাবে হেসে মাথা হেলিয়ে
“দেখালে দেখাবে,আমি তো প্রাই দেশের বাইরে যাই আইডিয়া থাকলে কিনে আনতে অনেক সুবিধা হবে আমার।”যেন দেখনোটা একটা নর্মাল ব্যাপার এমনভাবে বলেন বিমল।
তুমি কিন্তু একটা জিনিষ দাওনি,
কোনটা,বাইরে পরা চুড়িদার কামিজই পরে আছে নিলা,বাড়ীতে ওড়না নেই,তার কচি সিন্ধুডাবের মত বড় উদ্ধত স্তন ডিমের কুসুমের মত হলুদ কামিজ ফেটে বেরিয়ে আসবে মনে হয় বিমলের।

ঐযে তোমাকে বলেছিলাম,বড়বড় চোখে অস্থির এক আবেদন এঁকে বলে নিলা।জবাবে হেসে সিনামা দেখাতো,তুমি আমাকে কি কি সিনেমা দেখবে তার একটা লিস্ট করে দিও বলতেই উত্তেজনায় সামনে ঝুঁকে আসে নিলা,স্তনসন্ধি, টাইট চুড়িদার পরা দিঘল উরু কামিজের দুপাশের চেরার বাইরে উদ্ভাসিত,পাতলা কাপড় এতই শরীরে চেপে বসেছে নিলার ক্লিভেজ থেকে দৃষ্টি প্রত্যাহার করলেও মোহনীয় উরু থেকে চোখ ফেরাতে কষ্ট হয় বিমলের। erotic romance

“আর মাকে রাজি করানো”বড় বড় চোখে একটা অস্থির আকুতি নিলার,মনে মনে হাসেন বিমল এমন ছবী দেখাবেন যাতে শরীরের গরমে দু পা ফাঁক করে ধরতে কোনো দ্বিধা করবেনা ছুড়ি।
“মা কে দেখি? একটু চিন্তিত মুখে বলেন বিমল।
প্লিজ জেঠু উঠে এসে বিমলের কোল ঘেসে দাঁড়ায় নিলা।নিলার গায়ের ঝাঁঝালো ঘামের গন্ধটা পান বিমল,উত্তাপের ভাব আসছে যেন মায়েটার গা দিয়ে জানেন বিমল সারা শরীরের ঘাম কিশোরী নিলার কুচকি বগলের মেয়েলী গন্ধ সারাদিনের ঘোরাঘুরি তে উথলে আছে দেহের ভাঁজে ভাঁজে।

জেঠু এবার বিমলকে চমকে দিয়ে কোলে বসে পড়ে নিলা।নরম পাছার কোমোল উষ্ণ দাবনা,কামিজের তলে পাতলা চুড়িদার ভেদ করে পাছার ফাটল,না নিশ্চিত তিনি তলে প্যান্টি পরেনি মেয়েটা,আলতো করে নিলার কোমর ধরেন বিমল,লিঙ্গ দাঁড়িয়ে আছে চেষ্টা করে লাভ নেই জানেন তিনি,নিলার পাছার নিচে ডান উরুর পিছনে ঠেকে আছে শক্ত জিনিষটা।পিঠে হাত বুলিয়ে এবার নিলার গালে আদর করে চুমু দেন বিমল,মাটি কতটা নরম হয়েছে তা জানতে বুক টা দুরু দুরু করে তার।জবাবে তাকে নিশ্চিন্ত করে গলা জড়িয়ে তাকে আলিঙ্গন করে নিলা. erotic romance

যাক নিশ্চিন্ত নিলার ঘামেভেজা সোঁদা গন্ধভরা কিশোরী দেহটা আঁকড়ে ধরে ভাবে বিমল।
“নিলা আ,’নিচ থেকে স্বাতীর গলা চট করে তার কোল থেকে উঠে কিছু বোঝার আগেই চুক করে তার গালে চুমু খায় নিলা
“আসি,মাকে যে করে হোক বলে ব্যাবস্থা কর,”বলে বেরিয়ে যায় একছুটে।দেখতে দেখতে পুজো চলে আসে।বিজয়ার রাতে ছেলে মেয়েদের সিনেমার কথা বলে স্বাতী কে রাজি করায় বিমল।

“দেখুন তো কি জ্বালাতন,রাতে ঘুমুবেন না আআপনি,বলে স্বাতী।
“আরে ছেলেমেয়েরা জেঠুর কাছে আবদার করেছে,ছেড়ে দাও,হেসে বলে সলীল।
হাসে বিমল,”দেখবে তো নিলা আর বাবলু,আমার কি সিনেমা দেখার বয়ষ আছে,আমি ঠিকি ঘুমোবো ওদের চালিয়ে দিয়ে।”

“আচ্ছা দেখুক, ওদের দেখার পর আমরা কিন্তু আপনার সি ডি প্লেয়ারটা নেব একদিন,বলে স্বাতী,”হিহিহি, রাতে ব্লু দেখবো,বলে স্পষ্ট চোখে তাকায় বিমলের দিকে।স্বাতীর এই নির্লজ্জতা প্রথম থেকেই লক্ষ্য করেছেন বিমল।এতে যে সলীলের ও সায় আছে জানেন তিনি।দেখতে ভালো না হলেও একহারা শরীরটা দারুন স্বাতীর স্তন পাছার দিকে তাকালে নুনু নড়ে উঠবে যে কোনো পুরুষের।তবু আগ্রহ না দেখিয়ে নির্লিপ্ত হাসি মুখে চেয়ে থাকে বিমল।
“বিজয়ার পরদিন ছুটি আছে নিলা বাবলুও থাকছেনা,বেশ মজা হবে কিন্তু “বলে সলীল। erotic romance

থাকবে না’মনে মনে চমকে যায় বিমল,
“কোথায় যাবে?” জিজ্ঞাসা করতেই,
“ওর মামা বাড়ী যাবে।ওর মামা এসে নিয়ে যাবে,”বলে স্বাতী।
“ও আচ্ছা,বলে বিমল।

“আসুন না ভালো লাগবে আপনার।সেদিন নাহয় একটু মালের ব্যাবস্থা করা যাবে কি বল?”শেষ কথাটা স্ত্রী কে উদ্দেশ্য করে বলে সলীল।
“তোমার শুধু ঐ সুযোগ পেলেই হল,”বুকের উপর থেকে গড়িয়ে পড়া আঁচল সামলে টাইট ব্লাউজ পরা বাতাবী লেবুর মত ফেটে পড়া দুই স্তনের মাঝের গভীর খাঁজ ঢাকতে ঢাকতে বলে স্বাতী।
“কি বলেন দাদা,”
“নারে ভাই “হেসে মাথা নাড়েন বিমল. erotic romance

“আরে খেয়ে দেখুন,বেশি দাম না হাজার খানিক হলেই হবে,বলে সলীল।
“সে হবে ক্ষন,আমি টাকা দিয়ে দেব,তোমরা ছেলেমানুষ তোমরা দেখ ফুর্তি কর।
“না না তা হবে না,”তাড়াতাড়ি বলে স্বাতী,”আপনি টাকা দেবেন অথছ আপনি খাবেন না,তা কখনো হয়,আর আমরা তো তিনজনই,ও তো বেশি খেয়ে আউট হয়ে যাবে,আপনি থাকলে অন্তত আমি কিছুটা সঙ্গ পাবো।”ইঙ্গিতটা স্পষ্ট।মেয়েকে বিজয়ার রাতেই খাবেন পরেরদিন মাকে পেলে মন্দ কি?তাছাড়া নিলা বাবলু পরদিন মামা বাড়ী যাচ্ছে রাতে ঘটনা ঘটে গেলে মাকে বলার সুযোগ পাচ্ছেনা মেয়েটা।সবদিক দিয়েই তার অনুকুলে মনে হয় বিমলের।

এ কদিনের ঘোরাঘুরি প্রতিমুহূর্ত কাছাকাছি থাকা জেঠুর আরো ঘনিষ্ঠ কাছের হয়ে ওঠে নিলা।নিলার কিশোরী শরীরের গন্ধ উত্তাপ বেড়ে ওঠা স্তন পাছায় নিজের লোভী হাতকে অবলিলায় বিচরন করতে দেন বিমল।আনন্দে খুশির উপলক্ষে এতটাই বিভোর যে জেঠুর হাতের ছোঁয়ায় কিছু মনে করে না নিলা,তবে জেগে ওঠা নারীত্বের জোয়ারে তার পছন্দের মানুষ ছোঁয়ায় প্যান্টির যোনীর কাছে ভিজে ওঠায় নিজেকে নোংরা অসভ্য মেয়ে মনে হয় তার।
বিজয়ার আগের দিন তাকে সিনেমার লিস্ট দেয় নিলা. erotic romance

“জেঠু এই নাও লিস্ট,”
“ও বাবা এ তো অনেকগুলো, একদিনে দেখবে কিভাবে।
“কাল সারাদিন রাত পর্যন্ত তোমার ওখানেইতো থাকবো,মাকে বলেছি রাতেও থাকবো,এর মধ্যেই দেখা হয়ে যাবে সব’নিলার ফ্রকপরা বুকের উঠে থাকা ঢিবিতে একটা তৃপ্তির দৃষ্টি বুলিয়ে

“আচ্ছা তাহলেতো ভালোই,”বলে হাসে বিমল।
আর জেঠু,তুমি কিন্তু ভালো একটা হরর ছবী আনবে।
এর পরেও হরর ছবী,হরর ছবীগুলো যে বড়দের হয় মামনি।
“তুমিতো বল আমি বড় হয়ে গেছি,আদুরে গলায় বলে নিলা।”মনেমনে খুশিতে ডিগবাজি দিলেও
“কিন্তু মামনি…erotic romance

“প্লিজ,জেঠু প্লিইইইজ”
“আচ্ছা কিন্তু বাবলু ছেলেমানুষ ও এসব ভয়ের ছবী দেখলে..
“না না,তাড়াতাড়ি বলে নিলা শুধু আমি দেখবো,ও ঘুমিয়ে গেলে রাতে।”
“আর তুমি ভয় পেলে?”হেসে বলে বিমল।
“হিহিহি, আমি একা দেখবো নাকি,আমি দেখবো তুমি পাহারা দেবে,”
“বুঝেছি তোমার জন্য রাতের ঘুম যাবে আমার,”কৃত্তিম একটা দির্ঘশ্বাস ছেড়ে বলে বিমল।

“লক্ষি জেঠু” বলে,বাহুতে স্তন চেপে গালে চুমু দেয় নিলা।নিলার লিস্ট নিয়ে ভিডিও ক্লাবে যায় বিমল।ভিডিও ক্লাবের লোকটা খুব ঘনিষ্ট তার।লিস্ট অনুযায়ী সব ছবীগুলো নিয়ে।হরর ছবীর কথা বলে বিমল
“এমন ছবী দেন যাতে একটু, মানে… ইয়ে আছে”
“হরর সব ছবীতেই তো হালকা পাতলা ওসব থাকেই,”হে হে করে বলে ভিডিওক্লাবের মালিক। erotic romance

“একটু বেশি মানে ডাইরেক্ট আছে এমন ছবী নাই?”
অমন একটা ছবীই আছে,কিন্তু একেবারে যাকে বলে সরাসরি, কিন্তু বেশি হবেনা একটা দৃশ্য,একটা রেপ সিনে আছে শটটা,নতুন এসেছে ছবীটা,ভাড়া একটু বেশি।
দিন দিন ওটাই দিন,তাড়াতাড়ি বলে বিমল।

Leave a Reply