রিয়ার ঋণশোধ পার্ট – ০২

রিয়ার ঋণশোধ ০২

১ম পর্ব এখানে

২ নম্বর:

রাতের আঁধারে পুরনো এম্বাসাডরটি সশব্দে কলকাতার প্রায় ফাঁকা রাস্তা দিয়ে চলে যাচ্ছে… সেটির হেডলাইট সামনের অন্ধকার চিড়ে দুটি আলোর চোং তৈরী করেছে। গাড়ির ভিতরে ছিল বরুণ, যে নিজের ভাগ্যকে বিশ্বাস করতে পারছিলো না। সে নিজের পাশে একবার চুরি করে তাকায় – তার পাশে প্যাসেন্জার সিট এ আর কেউ নয় – রিয়া সেন! কলেজের সবথেকে সুন্দরী হৃদয়হরিণী ( বরুণের মতে )!

রিয়া চুপচাপ বসে ছিল, সামনের জানলার বাইরে সোজা তাকিয়ে ছিল। ওর আকর্ষনীয় দেহসৌষ্ঠব মাঝে মাঝে চলে যাওয়া স্ট্রিটলাইটের আলোয় উদ্ভাসিত হয়ে উঠছিলো। রিয়াকে সারাটা সন্দেহ এমনি চুপচাপ ও দ্বিধাগ্রস্ত লাগছিলো, যাতে বরুণের ধারণা হয়েছিল মেয়েটি তার সঙ্গলাভে উত্সাহী নয়। বরুণের মেয়েদের সম্বন্ধে কোনো অভিজ্ঞতা বা সাফল্য কোনটাই ছিল না, ছিল আত্মবিশ্বাসের অভাব। তাই সে রিয়ার কাছে মাফ চেয়ে ওকে বাড়ি পৌঁছে দেবার কথা বলেছিলো, কিন্তু রিয়া তখন আশ্বস্ত করেছিলো যে তার ভালোলাগছে আর তার বাড়ি যাওয়ার ইচ্ছা নেই।

সত্যি বলতে, রিয়ার অনুরোধেই তারা এখন ময়দানে এসেছে! ময়দান! তরুণ প্রেমিক-প্রেমিকাদের প্রধান রসালাপের স্থান। যে কোনো রাতেই ময়দানের পার্শ্ববর্তী রাস্তা জুড়ে বেশ অনেকগুলি গাড়ি পার্ক করা থাকে। বরুণ কোনদিন স্বপ্নেও ভাবেনি যে একদিন সে রিয়া সেন কে নিয়ে এখানে আসবে! ( প্রকৃতপক্ষে, সে স্বপ্নে অনেকবারই দেখেছিলো, কিন্তু কোনদিন কল্পনা করতে পারেনি বাস্তবে তা সম্ভব হবে! )

বরুণ রাস্তা থেকে গাড়ি ঘুরিয়ে নিয়ে এসে ময়দানের ধুলো মাখা রাস্তায় ঢোকে। বরুণ কখনো ভাবতে পারেনি রিয়া কখনো তার সাথে ডেট করতে রাজি হবে, কেননা রিয়ার জাত ছিল অনেক উঁচুতে, সে স্বাধারনতঃ ফুটবল টিমের তারকা বা তেমন জাতীয় ছেলেদের সাথেই থাকতো, তাও আবার তাদের খ্যাতি যতদিন থাকতো ততদিন। বরুণ ছিল ফুটবল টিমের এক অতি নগন্য সেকেন্ড-স্ট্রিম লাইনম্যান। যখন খেলার ফলাফল সম্বন্ধে কোনো সন্দেহ থাকতো না, শুধু তখনি তাকে মাঠে নামানো হতো। বরুণের এমনকি ফুটবল ভালোও লাগতো না। যদিও বরুণ কুত্সিত অথবা একদম অনামী ছিল না, তবুও তাদের মতো ছেলেরা শুধু রিয়া সেন কে ডেট এ নিয়ে যাবার স্বপ্নই দেখতে পারতো। বরুণ, গর্বের সাথেই বলতে পারে যে সে যখন রিয়াকে ডেট করার প্রস্তাব জানিয়েছিলো আগের বছরের গ্রীষ্মে, রিয়া তাকে প্রত্যাখ্যান করেছিলো তখন ঠিকই, তবে খুব একটা নির্মমভাবে না। সে ভালই অবাক হয়েছিল যখন রিয়া তাকে আগের সপ্তাহে ফোন করে শনিবার রাত্রে একটি ডেট করার প্রস্তাব দেয়।

বরুণ মনের কোনে এটাও ধরে রেখেছিলো যে এটা হয়তো একটা বড়সড় প্র্যাকটিকাল জোক হতে চলেছে। কিন্তু সে যখন রিয়াকে ওর বাড়ি থেকে আনতে গিয়েছিলো, রিয়া সত্যিই অপেক্ষা করে ছিল। হালকা শার্ট ও ছোট স্কার্টে সৌন্দর্য্যের দীপশিখা জ্বেলে! যদিও রিয়া খুব একটা কথাবার্তা বলেনি তার সাথে, বরুণ তেমন বিচলিত হচ্ছিলো না কারণ সে জানতো না রিয়া প্রকৃতপক্ষে কেমন স্বভাবের মেয়ে।

একটা সিনেমা, ও পার্ক স্ট্রিট রেস্তোরাঁয় ডিনার বেশ ভালোভাবেই মিটেছিলো। এখন ময়দানে এসে পরেও সে বিশ্বাস করতে পারছিলো না… তার শিশ্ন শক্ত হয়ে উঠছিলো পুলকে যখন সে গাড়ি পথের বাঁক দিয়ে ঘুরিয়ে নিয়ে যায়…

“এই জায়গাটা কেমন?” সে জিজ্ঞাসা করে। নিজেকে স্বাভাবিক শোনাবার চেষ্টা করিয়ে পারেনা। তার গলা শুষ্ক ও খসখসে হয়ে উঠেছে। সে একটা মোটামুটি জনপ্রিয় স্থানই বেছেছিলো; কয়েকটা গাড়ি পার্ক করা ছিল কিছু দূরে।

তারার আলোয় ভেজা কেশগুচ্ছ নিয়ে রিয়া মাথা নেড়ে অসম্মতি জানিয়েছিলো, “আরও দূরে।”

বরুণ ওর কথামতো গাড়ি চালিয়ে আরও কিছুটা দূরে চলে আসে, লোকারণ্য স্থান পিছনে ফেলে রেখে। সে বেশ ফাঁকা, লোকশূন্য একটি স্থানে এসে পৌঁছায়। আবহাওয়া একটু শীতল ছিল। বরুণ আগে রেস্টুরেন্টে থেকে রিয়াকে বেরিয়া আসার সময়ে একটু কাঁপতে দেখেছিলো, রিয়া নভেম্বরের শীতের হিসেবে একটি হালকা পোশাকই পরে ছিল।

কয়েক মিনিট পর, বরুণ তার গাড়ি একটা জনশুন্য স্থান দেখে পার্ক করে। গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ হতে রাত্রির নিঃস্তব্ধতা এসে গ্রাস করে ওদের দুজনকে কিছুক্ষণের জন্য। তারা দুজনেই বসেছিলো এক অস্বস্তিকর বাণীহীনতায়। বরুণের নিজেকে খুবই অপ্রস্তুত লাগছিলো কিছু শুরু করার পক্ষে, রিয়া চুপটি করে বসে ছিল, কালো, সুবিস্তৃত ময়দানের দিকে তাকিয়ে।

বরুণ আর না পেরে বলে ওঠে “শোনো…” কিন্তু তার কথা বন্ধ হয়ে যায় নিজের হাতে রিয়ার নরম হাতের স্পর্শে। তার গলা আটকে বুক চলকে ওঠে যখন রিয়া তার দিকে সরে এসে একহাতে তার স্কন্ধবেষ্টন করে। এরপর রিয়া ওর বরুণের মুখটি হাতে ধরে নিজের দিকে ফেরায়, কি যে অপরুপা লাগছিলো রিয়াকে তারার আলোয়!

This content appeared first on new sex story .com

– “চ-চুমু খাও আমায়” ফিসফিস করে ওঠে রিয়া, তার গলা কাঁপছিলো। তাকে কেমন অনিচ্ছুক, ভীত শোনাছিলো যেন। বরুণ তার বর্তমান অবস্থায় অবশ্য তা বুঝতে পারলো না,… তার স্বপ্ন তার চোখের সামনে জ্যান্ত হয়ে উঠছিলো! সে রিয়ার সুন্দর, ছিপছিপে দেহটি নিজের দিকে টেনে এনে নিজের ঠোঁটদুটো সজোরে চেপে ধরে ওর নরম ঠোঁট। জোড়ায়। একটু ইতস্ততঃ করার পর রিয়া তার দুটি থত খুলে দেয়, বরুণের জিভকে ঢুকে যেতে দেয় তার মুখের মধ্যে। সে বরুনকে চুম্বনে সহায়তা করছিলো না, চুপচাপ মেনে নিছিলো নিজে নিষ্ক্রিয় থেকে। বরুণ ওর এই অনিচ্ছা বুঝতে পেরে সহসা নিজের ঠোঁট তুলে আনে, চুম্বন ভেঙ্গে দিয়ে।

“কি হয়েছে, কোনো অসুবিধা?” বরুণ শুধায়, দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাসের মাঝে। রিয়া নিজের ঠোঁট কামড়ে ওঠে, স্বল্প আলোয় বরুণের যেন মনে হয় ও কেঁদে ফেলবে, কিন্তু রিয়া দুদিকে মাথা নাড়ে। বরুণ সন্তুষ্ট হয়ে আবার ঝুঁকে পড়ে, চুম্বনে লিপ্ত হয়। এবার রিয়া অংশগ্রহন করে। নিজের নরম, মসৃণ ঠোঁটদুটি বরুণের কর্কশ ঠোঁটে পিষ্ট করে, নিজের জিভ নাড়িয়ে বরুণের মুখের ভিতর। ক্রমশই গাড়ির ভিতরে আবহাওয়া উষ্ণ হয়ে ওঠে… জানালার কাঁচ ঝাপসা হতে শুরু করে।

কয়েক মুহূর্ত পর বরুণ অনুভব করে রিয়া তার হাত ধরে আস্তে আস্তে তার স্তনদুটির উপর নামিয়ে আনে। বরুণ সঙ্গে সঙ্গে আশ মিটিয়ে টিপে, চটকিয়ে চটকিয়ে উপভোগ করতে শুরু করে রিয়ার দুটি খাড়া খাড়া, সুডৌল স্তন ওর জামার পাতলা কাপড়ের উপর দিয়েই। সে বিশ্বাস করতে পারছিলো না কি হচ্ছে! সাহস করে সে এবার রিয়ার জামার বোতামগুলো খুলে ফেলে, তার টানাটানিতে কয়েকটা বোতাম ছিঁড়ে যায়, কিন্তু বরুণ তা বুঝতে পারেনা। রিয়াও ভাবান্তর করে না। বরুণ রিয়ার ব্রায়ের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে দেয়, নরম উষ্ণ একটি স্তন করতলে চেপে ধরে। সে কিছুটা প্রস্তুত ছিল রিয়া বাধা দিয়ে ওঠার কথা ভেবে, কিন্তু রিয়া তাকে একইভাবে চুমু খেয়ে চলেছে।

আত্মবিশ্বাস পেয়ে, বরুণ আরেক হাত রিয়ার পেছনে পাঠিয়ে ওর ব্রায়ের হুক খোলে। ব্রা-টি রিয়ার বুক থেকে খসে পড়ে, বরুণের দু-চোখ ও হাতের তলায় রিয়ার বোতামখোলা শার্টের মধ্যে দুটি নগ্ন স্তন প্রায় পুরোটাই উন্মুক্ত হয়ে যায়। রিয়া একটু শক্ত হয়, কিন্তু কোনো অভিযোগ করে না।

তার বদলে রিয়া হাত নামিয়ে বরুণের জিন্সে ফুলে ওঠা তাঁবুটির উপর হাত বোলায়। বরুণ শ্বাস টেনে ওঠে, সে স্বপ্ন দেখছে না তো? সে একটু পেছন হেলে রিয়াকে দেখে। ওর দুই চোখ বন্ধ, মুখটি অল্প খোলা, জোরে জোরে নিঃশ্বাস নিচ্ছে মেয়েটি, মনে হয় বরুণের, কিন্তু স্বল্প তারার আলোয় তা ঠিকমতো বুঝে উঠতে পারেনা সে। বরুণ শুধু দেখে যাচ্ছিলো রিয়ার খোলা শার্টের মধ্যে ওর উদ্ধত স্তনদুটির ওঠানামা। সে এবার হাত বাড়িয়ে তার সেই স্বপ্নের স্তনদুটি নিয়ে খেলতে শুরু করে। পালা করে সেদুটি ধরে ধরে চটকায়, মলে, বোঁটাগুলি মুচড়ে মুচড়ে দিতে থাকে… রিয়া এতে অস্ফুটে শব্দ করে ওঠে, কিন্তু চোখ খোলে না।

রিয়ার হাতও থেমে নেই। বরুণের জিপার মসৃণ গতিতে খুলে ফেলে তার নরম, উষ্ণ হাত ভিতরে ঢোকে। রিয়া নিজের হাত বরুণের ইতিমধ্যেই ভিজে ওঠা জাঙ্গিয়ার ভিতরে পাঠিয়ে ওর লিঙ্গ বাইরে বার করে আনে।

বরুণ আবার অবিশ্বাসের কবলে পড়ে! রিয়া সেন এমন ব্যবহার করছে সে কখনো শোনেনি! এমনকি রিয়া জনপ্রিয় কারো সাথে অনেকদিন দীর্ঘ প্রনয়ে জড়িত থাকা কালীনও! যাই হোক, সে তার মনের এবং হাতের সুখ মিটিয়ে রিয়ার নগ্ন স্তনদুটি চটকিয়ে ও কচলিয়ে চলে, যেদুটি রিয়া তার প্রতি সমর্পণ করে রেখেছিলো। সে অপেক্ষা করে স্তন চটকাতে চটকাতে, পরের উদ্যোগ রিয়ার উপর ছেড়ে দিয়ে।

রিয়া বেশি সময় নেয় না, একটি বড় নিঃশ্বাস টেনে সে তার দুই চোখ খোলে আর সিটে হেলান দেয়, বরুণের হাত ছাড়িয়ে ওর থেকে সরে গিয়ে। গাড়ির দরজায় পিঠের ভার রেখে সে নিজের স্কার্ট তুলে ফেলে, তারার স্নিগ্ধ আলোয় নিজের ফর্সা দুটি পা উন্মোচিত করে।

More from Bengali Sex Stories

Leave a Reply