মিমের ডায়েরী মামাতো ভাই – New Sex Story

এই ২০১৩ সালেত কথা। সেবার দাওয়াত এর ছুতো তে মামির চাচাতো বোনের বিয়েতে গেছিলাম। মামির সাথে ভাল সম্পর্ক থাকার কারনে আমাকে নিয়ে যায় তাদের সাথে। আমি, মামা মামি আর তার দুই ছেলে আবির আর অনিক গেলাম। আমার এস এস ছি সেসে ফ্রি টাইম ছিল তাই বাসায় কিছু বলল না। বিয়েটা গ্রামের বাড়িতে। আর জাওয়ার পথ খুব দুর্গম। ট্রলারে করে যেতে হয়। ৪ ঘণ্টা জার্নি করে আমরা গ্রামে পৌঁছলাম। তারা আমাদের স্বাদরে গ্রহণ করলো। তাদের গ্রামের বাড়িতে বিশাল দুটো ঘড় একটা দুইতলা বিল্ডিং আরেকটা পুরাতন টিনের ঘর। দুইতলা মিলে অন্তত ২০টা রুম জার অধিকাংশ খালি থাকে। আমাকে উপরে দক্ষিণ পাসের ঘরে থাকতে দিলো। তাছাড়া ৫-৬ টা খরের স্তুপ আর গরু মহিষ রাখবার জন্য আলাদাভাবে করা ঘর। বিকেলবেলা আমরা সান বাধানো পুকুরপাড় এ বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম। অনিক ভাইয়া আমাকে বললেন – মিম ঘুরতে যাবি?
আমিও রাজি হয়ে গেলাম। আমি ছোট ভাই আবির আর অনিক ভাইয়া ঘুরতে বেড় হলাম। কিছুদূর যাবার পড় আবির কে ভাইয়া বাসায় চলে যেতে বলে। আমিও যেতে চাইলে ভাইয়া থাকতে বলে আমাকে। আবির চলে যেতে ভাইয়া আমার সাথে করে এলাকা ঘুরিয়ে দেখাতে লাগলো। দেখতে দেখতে সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলো। এম্নিতেই শীতকাল তার উপর কুয়াশা অনেক আমরা বাসার দিকে রওনা দিলাম। এমন সময় আমার বয়ফ্রেন্ড কল দিলো – আমি অনিক ভাই কে দারাতে বলে বফের সাথে কথা বলতে থাকি। যদিওবা নেটওয়ার্ক সমস্যা করতেছিল। কিছুক্ষণ কথা বলার পর ফোন কেটে যায়। আমিও বাসার দিকে রওনা দেই। ভাইয়া জিজ্ঞাস করলো – কিরে, বয়ফ্রেন্ড নাকি
আমি স্বাভাবিক ভাবে অস্বিকৃতি জানিয়ে বলি – না ভাইয়া, কিজে বল। ব্যপফ্রেন্ড কি আমাদের কপালে আছে। অগুলা সুন্দরি মেয়েদের কপালে আছে। বলে একটা দীর্ঘ নিশ্বাস ফেলি। ভাইয়া আমার কাধে হাত রেখে আমাকে জরিয়ে ধরে। মাঠেঘাটে তখন কেউ নেই। ভাইয়া আমাকে গালে আদর দিয়ে বলে – ধুরু পাগ্লি, তুই অনেক সুন্দর। দেখবি তোর জন্য রাজকুমার আনবো। তুই আমার লক্ষি বোন।
আমি – তুমি অনেক ভালো। কিন্তু সে কপাল কি আমার আছে।
ভাইয়া বললেন – ভাইয়া তুই অনেক ভাগ্যবতী। তোর কেমন ছেলে পছন্দ?
আমি বললাম – তোমার মত ছেলে হলেই হবে।
ভাইয়া – তাহলে কি আমি লাইনে দারাবো
আমি কি উত্তর দিবো বুঝতে পারছিলাম না। কিছুটা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলাম। তাও ফ্লার্টিং চালিয়ে গিয়ে বললাম – তোমার কি আমাকে পছন্দ?
ভাইয়া কিছুনা বলে আমাকে কিস করা শুরু করলো আমি কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে গেলাম। ভাইয়া জ্যাকেট এর উপর দিয়ে দুদু টিপতে লাগলো। আমি নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারতেছিনা নিজেই নিজের হাত শক্ত করে মুঠি করে রাখি। ভাইয়া আমার জ্যাকেট এর চেইন খুলে জামার উপর দিয়ে হাতাতে থাকে। জামা গলিয়ে ভিতরে তার ঠাণ্ডা হাত ঢুকিয়ে দেয়। এভাবে ওপেন প্লেসে আমার কিছুটা অসস্তি লাগ্লেও ভিতর ভিতর ইঞ্জয় করসিলাম। তাও ভয় করছিলো কেউ যদি দেখে ফেলে। আমি ভাইয়াকে বলি – এখন কিছু না ভাইয়া, বাসায় চলো। আমার ভাল্লাগেনা।

Leave a Reply